February 28, 2024

৩০ পার হলেই ডায়াবেটিস পরীক্ষা করতে হবে

ডাক্তার দেখাবেন বলে টিকিট কেটে অপেক্ষা করছেন পঞ্চাশোর্ধ আম্বিয়া খাতুন। রাজধানীতে বারডেম জেনারেল হাসপাতালের গেটের সামনে চিকিৎসা নিতে আসা আম্বিয়া খাতুনের সঙ্গে কথা বলে জানা যায় তিনি ডায়াবেটিস, প্রেশার আর শ্বাসকষ্টের মতো রোগে ভুগছেন। এ নিয়ে বিভিন্ন হাসপাতালে কয়েকবার চিকিৎসাও নিয়েছেন। শ্বাসকষ্টের সমস্যা তার দীর্ঘদিনের। ফুসফুসে ইনফেকশন আছে, ডায়াবেটিসের কারণে তা সেরে উঠছে না। ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে রাখলে এর থেকে মুক্তি মিলতে পারে। তাই চিকিৎসা নিতে এসেছেন।

আসাদ ও হাছিনা বেগম দম্পতি, দু’জনই ডায়াবেটিসের রোগী। প্রতিদিন নিতে হয় ইনসুলিন। দুই জনের ওষুধের পেছনেই প্রতিমাসে খরচ হচ্ছে ৫ হাজার করে টাকা। এছাড়া নিয়মিত ডাক্তার আর চেকআপের পেছনে খরচ তো আছেই। আম্বিয়া খাতুন কিংবা আসাদ-হাছিনা দম্পতির মতো ডায়াবেটিস রোগে আক্রান্ত মানুষের চিকিৎসা খরচ চালাতেই হিমশিম অবস্থা, দুর্ভোগ তো আছেই।

আজ, মঙ্গলবার (১৪ নভেম্বর) সারাবিশ্বে পালন করা হচ্ছে ‘বিশ্ব ডায়াবেটিস দিবস’। এবারের প্রতিপাদ্য ‘ডায়াবেটিসের ঝুঁকি জানুন-প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিন’। দিবসটি উপলক্ষে সরকারি-বেসরকারিভাবে আলোচনা সভা, বিনামূল্যে ডায়াবেটিস নির্ণয়, র্যালি এবং সচেতনতামূলক লিফলেট বিতরণসহ দিনব্যাপী নানা কর্মসূচি পালন করা হচ্ছে বাংলাদেশেও।

বাংলাদেশের শহর ও গ্রামে প্রায় সমানভাবে বাড়ছে ডায়াবেটিসের রোগী। গত দুই বছরে ৫৬ শতাংশ বেড়েছে। নিয়মিত চিকিৎসা না করায় ইনসুলিন নেওয়ার পরও ৮০ ভাগের বেশি রোগীর ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে নেই।

দিবসটি উপলক্ষে সোমবার (১৩ নভেম্বর) ইব্রাহিম কার্ডিয়াক হাসপাতালে বাংলাদেশ ডায়াবেটিস সমিতির আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, বর্তমানে বিশ্বে প্রায় ৫৪ কোটি মানুষ ডায়াবেটিসে আক্রান্ত। ২০৪৫ সালে ৭৮ কোটিতে পৌঁছানোর আশঙ্কা রয়েছে। ২০২১ সালে বিশ্বে ৬৭ লাখ মানুষ ডায়াবেটিসের কারণে মৃত্যুবরণ করে। বাংলাদেশে ১ কোটি ৩০ লাখ ডায়াবেটিসে আক্রান্ত। দেশের ৬৫ শতাংশই জানে না তাদের ডায়াবেটিস আছে। বাংলাদেশের মতো উন্নয়নশীল দেশে ১০০ জনের মধ্যে ২৬ জন নারীই গর্ভকালীন ডায়াবেটিসে আক্রান্ত হয়। যাদের ৬০ শতাংশই পরবর্তীকালে টাইপ-২ ডায়াবেটিসে আক্রান্ত হয়। এসব রোগীর জন্য বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক রয়েছে মাত্র ৩২০ জন।

অন্যদিকে, দিবসটিকে ঘিরে জাতীয় প্রেস ক্লাবে বাংলাদেশে এন্ড্রোক্রাইন সোসাইটি সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে সোমবার (১৩ নভেম্বর)। এতে সোসাইটির সাধারণ সম্পাদক ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেলের (বিএসএমএমইউ) এন্ডোক্রাইনোলোজি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ডা. শাহাজাদা সেলিম বলেন, সর্বশেষ বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার অর্থায়নে যে গবেষণা হয়েছে, তাতে দেখা গেছে, দেশে মোট জনসংখ্যার ১০ দশমিক ৮ শতাংশ মানুষ ডায়াবেটিস রোগে আক্রান্ত। অর্থাৎ প্রায় এক কোটি ৮০ লাখ মানুষ ডায়াবেটিস রোগে ভুগছে। ডায়াবেটিস থেকে অন্যান্য রোগে আক্রান্ত হচ্ছে অনেকে। এর মধ্যে প্রধান হলো হৃদরোগ। হৃদরোগের ৮০ শতাংশই রোগী ডায়াবেটিসের কারণে মারা যায়। ৪০-৪৫ শতাংশের কিডনি প্রতিস্থাপন প্রয়োজন হয় ডায়াবেটিসের কারণে। এছাড়া অন্ধত্বের অন্যতম প্রধান কারণ ডায়াবেটিস। ডায়াবেটিস রোগীর ২৯ শতাংশ রেটিনোপ্যাথিতে ভুগছেন। ডায়াবেটিসের কারণে প্রজনন ক্ষমতাও হ্রাস পাচ্ছে।

About The Author

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *