February 23, 2024

স্বস্তি নেই সবজি বাজারে

দিন দিন মানুষের হাতের নাগালের বাইরে চলে যাচ্ছে নিত্য প্রয়োজনীয় সবজির দাম। এভাবে চলতে থাকলে সাধারন মানুষ বছর শেষ না হতেই দিশেহারা হয়ে পড়বে ।

রাজশাহীর সাহেব বাজার মাস্টারপাড়া কাঁচা বাজারে আজ প্রতিটি সবজির দাম যেন আকাশচুম্বী। ৫০ টাকার নিচে কোন সবজি নেই বললেই চলে। দিন যাচ্ছে প্রতিটি পন্যর দাম যেন পাল্লা দিয়ে বৃদ্ধি পাচ্ছে।

আজ আবারো বড়েছে মুরগী ও পেঁয়াজের দাম।তবে চাল, ডাল, ডিম, চিনি, ও সয়াবিনের মতো নিত্যপণ্যের দাম উচ্চমূল্যে মোটামুটি স্থির হয়ে আছে।

এক সপ্তাহের কম সময়ের মধ্যে প্রতিটি মুরগীর দাম কেজিতে ১০ টাকা থেকে ১৫ টাকা বৃদ্ধি পেয়েছে।দেশি মুরগী ৪৮০,সোনালী ৩০০, ব্রয়লার ১৮০। এছাড়াও বৃদ্ধি পেয়েছে মাছের দাম। কেজিতে সব ধরনের পেঁয়াজের দাম বেড়েছে পাঁচ টাকা। দেশি পেঁয়াজের দাম ৯০ থেকে ৯৫, ইন্ডিয়ান পেঁয়াজ ৭০ থেকে ৭৫ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে। তবে দাম বেঁধে দেওয়ার পরও সরকার নির্ধারিত ৬৪ থেকে ৬৫ টাকায় দেশি পেঁয়াজ বিক্রি হতে দেখা যায়নি।

সাহেব বাজারের একজন ব্যবসায়ী জানান, সরবরাহ কম থাকায় দেশি পেঁয়াজের দাম বাড়তির দিকে। পাইকারিতে প্রতি কেজি দেশি পেঁয়াজ কিনতে হচ্ছে ৮৪ থেকে ৮৬ টাকায়। তাতে এই পেঁয়াজ ৯০ টাকার ওপরে বিক্রি করতে হচ্ছে ।অন্যদিকে দেশি রসুন ২৫০, চাইনা রসুন ২০০ টাকা ।আদা প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে ২০০ থেকে ২২০ টাকা।

ব্যবসায়ীদের বক্তব্য,বাজারে পর্যাপ্ত আলু আমদানি না হওয়ার কারনে আলুর দাম কমানো সম্ভব হচ্ছে না। সরকার আলুর দাম বে‌ধে দি‌লেও তার চে‌য়ে ১০টাকায় বে‌শি বি‌ক্রি হ‌চ্ছে আলু। হলেন্ডার আলু ৫০ টাকা, দেশি আলু ৬০ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে ।

মাংসের দাম উঁচুতেই রয়েগেছে। প্রতি কেজি গরুর মাংস ৭৫০ থেকে ৮০০ টাকা। খাসির মাংসের দাম পড়ছে ১ হাজার থেকে ১ হাজার ১০০ টাকা।

সবজির বাজারেও নেই স্বস্তি ।বেড়েছে অধিকাংশ সবজির দাম। বেগুন কিনতে হচ্ছে প্রতি কেজি ৬০ থেকে ৮০ টাকায়।ঝিঙা ৬০, ধুন্দুল ও চিচিঙ্গার মতো সবজির কেজি ৬০ টাকার নিচে পাওয়া যাচ্ছে না। সস্তার সবজি বলতে শুধু পেঁপে প্রতি কেজি ২০ থেকে ২৫ টাকা। পটোল ৫০, ঢ্যাঁড়স দামও প্রতি কেজি ৫০ টাকার ওপরে। কাঁচা মরিচের কেজি পড়ছে ১৬০ থেকে ১৮০ টাকা। টমেটো ১৬০, গাজর ১২০, ফুলকপি ৬০, করলা ৬০ ,কচু ৮০ মিস্টি কুমড়া ৬০ মূলা ৫০, শশা ৫০ বরবটি ৮০ , ধনে পাতা ১২০, সিম বিক্রি হচ্ছে ১২০ টাকা কেজিতে।

ক্রেতা জাফর ইকবাল বাজা‌রের ‌নিত্যপন্যের দাম প্রস‌ঙ্গে ব‌লেন, ‘মাছ-মাংসের দাম কমার কোনো লক্ষণ দেখি না। আলু ও বেগুনের মতো সবজিও চড়া দামে কিনতে হচ্ছে। তাতে আমাদের মতো নির্দিষ্ট আয়ের মানুষের জন্য সংসার চালাতে বেশ কষ্ট হয়। কতো দিন এভাবে চলবে , আগে ১ হাজার টাকা নিয়ে বাজারে আসলে ব্যগ ভরে বাজার বাসায় নিয়ে যেতাম আর এখন পলিথিনে বাজার নিয়ে যায় । বাজারের ব্যাগের দরকার পড়ে না ।

রির্পোটার, ফ্ল্যাশ নিউজ
তাহসিব আলম শাহ

About The Author

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *